কাপুরুষের গল্প

কাপুরুষের গল্প বলি শোনরে দাদু শোন,
তখন থেকেই বইছি সবাই শোকে সিক্ত মন।

বীরের জাতি কেনো বলে বিশ্বের প্রতি জন,
দেশের প্রতি বাঙ্গালিদের ছিলো উদার মন।

লেজ কাটা ঐ ভীরু জাতি যাদের ডাকি পাক,
দখল নিতে বাংলার এ দেশ বাজায় গেলো ঢাক।

খালি কলস বাজে বেশি শুনে তোরা রাখ,
জবাব দিতে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধে দিলো ডাক।

কাপুরুষের নামটা দিতেই আঁখি ছলছল ,
শুনলে তোরাও বাচ্চা তবু আসবে চোখে জল।

বীর বাঙ্গালী দেশে যখন শান্তিতে দেয় ঘুম,
ঘুমের মাঝে বাঙ্গালীদের মারে ধুমাধুম।

ঘুমের মানুষ মারতে তারা আনলো সাথে ট্যাঙ(ক)
বুক পাঁজরে ছুড়লো গুলি গুড়ে দিলো ঠ্যাং।

সেই ঘুমেতেই চির ঘুমে আর খোলেনি চোখ,
সেসব কথা মনের কোনে জমায় শুধু শোক।

কেউ হারালো মাও বাবা কেউ হারালো ভাই
এমন শোকের ব্যথার কথা বিশ্বে কোথাও নাই।

আঁধার রাতে পিছন পথে নিরস্ত্রকে খুন,
কাপুরুষের এসব ছাড়া কী’বা রবে গুন।

মারলো তারা শিশু ধরে মারলো নারী জাত,
জবাব দিতে আমরা তখন হাতে রাখি হাত।

মুখোমুখি হয়ে যখন বলি সবাই ধর,
ডরে তাদের কাঁপতে থাকে ত্রিনয়নের ঘর।

জীবন বাজির লড়াইতে যেই আসে বীরের ঝাঁক,
পালায় পাকি বিপথ দিয়ে ওরে বাবা ডাক।

জীবন গেলো সাতটি বীরের শ্রেষ্ঠ তার কাজ,
মারলো পাকি ঝাঁকেঝাঁকে নিয়ে সেনার সাজ।

মরার ভয়ে ভীত পাকি পড়ে বীরের পায়,
কাপুরুষের কোলে তাঁরা নিলো শেষে ঠায়।

তবে দাদু গল্প শুনে এটাই মনে রাখ,
জীবন গেলেও পিছনে নয় সামনে দিবি হাঁক।

663total visits,1visits today

এস এম মঞ্জুর রহমান

Leave a Reply